জীবনবৃত্ত

ফিল্টার এর যত্ন কিভাবে নিবো ?

ফিল্টার এর যত্ন
ফিল্টার এর যত্ন

ফিল্টার এর যত্ন নেওয়া খুব প্রয়োজন। সঠিক ভাবে যত্ন নিলে একটা ফিল্টার অনেক দিন যাবে।
পরিষ্কার আর নিরাপদ পানি পান করার বিষয়টা নিশ্চিন্তে থাকা যায়।
খালি চোখে পানি দেখতে পরিষ্কার মনে হলেও তা বিশুদ্ধ ও নিরাপদ হয় না৷ পানি ফুটিয়ে বিশুদ্ধ করা যায়।

আবার ফিল্টার দিয়েও পানি বিশুদ্ধ করে নিতে পারেন। বাজারে নানা ধরনের পানি বিশুদ্ধকরণ ফিল্টার পাওয়া যায়।
এসব ফিল্টারে কয়েক স্তরে পানি শোধন হয়ে পান করার উপযোগী হয়।
গুণগত মান, পানির ধারণক্ষমতা ও ব্র্যান্ডের ওপর ফিল্টারের দাম নির্ভর করে।

ফিল্টার কিভাবে পরিষ্কার করবো ?

ফিল্টার এর যত্ন না নিলে তাড়াতাড়ি পানি ময়লা হবে। ফিল্টার ব্যবহার করেও নিরাপদ পানি পান করতে পারবেন না। পানি বেশি দিন পাত্রে থাকলে শেওলা জমে যেতে পারে।
তাই পানিতে কোনোভাবেই শেওলা জমতে দেওয়া যাবে না। সাত দিন অন্তর ফিল্টারের সিরামিক পরিষ্কার করা উচিত।

সাধারণত নেট ব্যাগ দিয়ে এটি পরিষ্কার করা যায়। ফিল্টারের ভেতরটা কখনোই সাবান বা ডিটারজেন্ট দিয়ে ধোয়া যাবে না, একটা বাটিতে থালাবাটি ধোয়ার তরল সাবান গুলিয়ে নেট দিয়ে হালকা করে ভেতরটা পরিষ্কার করে নিয়ে তারপর পানি দিয়ে ধুতে পারেন।
তবে বাইরের অংশ সাবান বা ডিটারজেন্ট দিয়ে ধোয়া যাবে।

ফিল্টার এর যত্ন কিভাবে নিতে হবে ?

ফিল্টারে কখনোই গরম পানি ঢালা যাবে না। যে ফিল্টারই কিনুন না কেন, কেনার আগে নিয়মাবলি ভালোভাবে বুঝে নিতে হবে।
ইলেকট্রনিক ফিল্টার ব্যবহারে সতর্ক থাকতে হবে। ফিল্টার পদ্ধতির ভিন্নতা থাকতে পারে।
একেক মানুষ একেকটি ফিল্টার ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু সবারই একটি কাজ করতে হবে। তা হলো ফিল্টারের সময়মতো কার্টিজ বদলানো।

পানিতে কেমন ময়লা আসে, তার ওপর ভিত্তি করে কার্টিজ বদলাতে হয়। তা ছাড়া এমনিতেই অন্তত ছয় মাস পরপর কার্ট্রিজ বদলে ফেলুন।
ফিল্টারে মাইক্রো ফাইবার ম্যাশ বা ছাঁকনিটা পারলে প্রতি সপ্তাহে পরিষ্কার করুন এবং কার্ট্রিজের সঙ্গে এই ছাঁকনিটাও বদলান অন্তত বছরে দুবার।
এই তো, এতটুকুই যত্ন। নিরাপদ পানি পান করুন আর সুস্থ থাকুন, সঙ্গে পরিবারের সবার সুস্থতা নিশ্চিত করুন।

ফিল্টারের খোঁজখবর:

পিওরইট: ইউনিলিভারের পিওরইট ব্র্যান্ডে ২৩ লিটার পানি ধারণক্ষমতার ফিল্টার পাবেন চার হাজার টাকায়। বর্তমানে ৬টি মডেলের ওয়াটার পিউরিফায়ার বাজারজাত করছে ওয়ালটন। এর মধ্যে একটি মডেল রিভার্স অসমোসিস (আরও) টাইপ।

যেটি পাঁচ ধাপে পানি পরিশোধন করে থাকে। এটির দাম ৯ হাজার টাকা। এ ছাড়া ১৭ থেকে ২৮ লিটার ধারণক্ষমতার ৫ মডেলের ওয়ালটন পিউরিফায়ারের দাম ২ হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে।

সব মডেলেই ফুড গ্রেড প্লাস্টিক ব্যবহার করা হয়েছে। মিনারেল পট ছাড়াও প্রতিটি পণ্যের সঙ্গে থাকছে সিরামিক ফিল্টার, মাল্টিলেয়ার কার্ট্রিজ ফিল্টার, মিনারেল স্টোনবক্স ও ম্যাগনেটিক ট্যাপ। পরিশোধিত বিশুদ্ধ পানির নিরাপদ মাধ্যম ওয়ালটন ওয়াটার পিউরিফায়ার।
বিশেষ করে গরমের সময়টায় পানিবাহিত রোগ থেকে রক্ষা পেতে নির্ভর করা যায় ওয়ালটন ওয়াটার পিউরিফায়ারের ওপর।

পানি কিভাবে ফুটিয়ে বিশুদ্ধ করতে হয় ?

পানি ফুটিয়ে (Boiling) জীবানু মুক্ত করার পদ্ধতিটা প্রায় সকলেরই জানা। সরাসরি ডোবা বা জলাশয়ের পানির ক্ষেত্রে অন্তত ২০ মিনিট ধরে ফুটানোর কথা বলা হয়। তবে আমেরিকান সরকারী পরিবেশ সংরক্ষণ এজেন্সির (USEPA) মতে, ফিল্টারকৃত থিতানো পানি ১ মিনিট ধরে পূর্ণমাত্রায় ফুটালেই কাজ হবে (এক মাইলের চেয়ে বেশি উচ্চতার জায়গায় ৩ মিনিট; কারন, উঁচু জায়গায় পানির স্ফুটনাংক কমে যায়)।

অর্থাৎ অপেক্ষাকৃত পরিষ্কার পানির জন্য ১ মিনিট টগবগ করে ফুটানো যথেষ্ট। এটা পানি ফুটানোর সবচেয়ে অদক্ষ পদ্ধতি। পৃথিবীর কোনো পানির শোধনাগারে জীবানু মুক্ত করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়না।

অনেকেই পানি দীর্ঘসময় ধরে ফুটান। এটা খুবই ক্ষতিকর। দীর্ঘ সময় ধরে পানি ফুটালে পানিতে অক্সিজেনের পরিমান কমে যায়।
আর পানিতে মিশ্রিত ধাতব উপাদানের মাত্রা বেড়ে যায়। যা স্বাস্থ্যের জন্য অপকারী।

সূত্র :ইন্টারনেট

অলসতা দূর করবেন কিভাবে?

Drinkit Water Purifier:

Total capacity: 24 Liters

Primary chamber capacity: 11 Liters

Purified chamber capacity: 13 Liters

Purifying flow rate: Up to 1.5 L / hr (depend on water qualities & Pressure)

4 stages nano technology purification system

Consumption capacity : 7000L.

 

Video